শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
লালমনিরহাটে ক্ষতিকারক ইউক্যালিপটাস গাছ ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে লালমনিরহাটের বটতলার সড়কবাতি জ্বলে না! লালমনিরহাটের প্রাচীন বটগাছটি হেলে যাচ্ছে! লালমনিরহাটে ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাই চেষ্টা; ২ পুলিশ সদস্য প্রত্যাহার! লালমনিরহাট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতিকে অব্যাহতি লালমনিরহাট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির বিরুদ্ধে গরু ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে ২লাখ ৪০হাজর টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগ! উপকারভোগীর কাছ থেকে মাইক্রোফোন কেড়ে নেওয়ায় ক্ষেপে গেলেন প্রধানমন্ত্রী! লালমনিরহাটে সিজেজি সদস্যদের সাথে নেটওয়ার্কিং মিটিং অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটের ঐতিহ্যবাহী মোগলহাট জিরো পয়েন্ট এখন শুধুই স্মৃতি : দর্শনার্থীদের ভিড়
লালমনিরহাটে সংসারের ঘানি টানতে তৈলের ঘানি টানছেন মজাহার আলী ও তার স্ত্রী

লালমনিরহাটে সংসারের ঘানি টানতে তৈলের ঘানি টানছেন মজাহার আলী ও তার স্ত্রী

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ: লালমনিরহাট জেলার লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের আলোকদিঘি গ্রামের মজাহার আলী (৮৫)। আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল থাকায় বৃদ্ধ বয়সেও এসে তৈলের ঘানি টানতে হচ্ছে।

 

জানা গেছে, ৫জন ছেলে-মেয়েসহ ৭সদস্য বিশিষ্ট  পরিবারটির ভরণ-পোষণ করতেই তার অর্জিত টাকা শেষ হয়। টাকা জমানোর কোন সুযোগ হয়না। মজাহার আলীর ছেলে আমিনুল ও আজিজুল, ২জনই বিয়ের কিছুদিন পরেই আলাদা হয়। ফলে তাঁর সংসার চালানো কষ্টকর হয়ে পরে। মজাহার আলীর ৩মেয়ে মজিদা বেগম, মোর্শেদা বেগম ও কুলছুমকে বিয়ে দেওয়ার সময় যে পরিমাণ যৌতুকের টাকা গুনতে হয়েছিল, তাতে তিনি একবারেই নিঃস্ব হয়ে পড়েন।

মজাহার আলী বর্তমানে কিভাবে দিন যাপন করছেন তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার বড় ছেলের তৈরী করা ঘরের একটি রুম তাঁকে থাকার জন্য দেওয়া হয়েছে। মজাহার আলী ও তাঁর স্ত্রীসহ কোন মতে সেখানে নিদ্রাযাপন করেন।

 

মজাহার আলীর এ পেশার কথা জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন যে, দীর্ঘ ৬০বছর হয় তিনি এই কাজ করে আসছেন, ১০বছর বয়সে তার বাবার সাথে কাজ করতেন।  বাকী ৫০বছর তিনি নিজেই এ কাজ করে আসছেন। আশেপাশের গ্রাম থেকে বাকীতে সরিষা কিনে উক্ত সরিষা থেকে তৈল তৈরী করে বাজারে বিক্রি করে, বকেয়া টাকা পরিশোধ করেন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন হাট-বাজারে গিয়ে সরিষা ক্রয় করেন।

 

মজাহার আলীর কাছে  সরিষার তৈলের দাম জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১কেজি সরিষার তৈল এবং খৈয়ল বিক্রি করে ২শত থেকে ২শত ৫০টাকা। এ দর সরিষা আমদানি বেশি হলে  অনেক কমে যায়।

 

তেলী পরিবারটিতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির উঠানে ছনের চালায় ঘরের স্থাপনা তৈরী করা হয়েছে। গাছের গুঁড়ি দিয়ে তৈরি তৈলের ঘানিটি। গ্রাম্য ভাষায় সেটিকে বলা হয় তৈলগাছ। বর্তমানে সেখানে স্ত্রীর সহযোগিতায়, গরু দ্বারা  ঘানি টানছেন তিনি। উদ্দেশ্য সরিষা হতে তৈল তৈরি ও বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করা। সহায় সম্বল বলতে পৈত্রিকভাবে পাওয়া বাড়ি ভিটার ৫শতক জমি যেখানে টিনের তৈরী ১টি ঘর এবং তৈল গাছটি দেখা যায়।

মজাহার আলীর বর্তমানে যে গরুটি রয়েছে তা প্রায় কর্ম অক্ষ্যম। নতুন একটি গরু কিনবে সে টাকাও জোটেনা তাঁর। একটি গরু কেনার টাকা সহযোগিতা পেলে, যা দিয়ে ঘানি টেনে নিস্কৃতি পেতে পারেন অসহায় মজাহার আলী ও তাঁর তেলী পরিবারের সকল সদস্য।

 

মজাহার আলীর কাছে খাঁটি সরিষার তৈল কিনে চরখাটামারী এলাকার মোঃ আসাদুল হক (৩৫) তিনি নিজের প্রয়োজনে ব্যবহার করে এবং সাথে কবিরাজিও করেন।

 

কুলাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, ইতিপূর্বেই  তারা ধোপা, নাপিত, কুলি ও তেলী এ রকম শ্রেণির পেশার তালিকা সমাজসেবা অধিদপ্তরের দেওয়া হয়েছে কিন্তু মজাহার আলীর নাম আছে কিনা সঠিকভাবে বলতে পারেনা।

 

কুলাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী বলেন, ইতিপূর্বে এ রকম শ্রেণির পেশার যারা আছেন তাদের তালিকা ইতিমধ্যে জমা দিয়েছেন। কিন্তু তার নাম আছে কি না সে বিষয়ে কিছু বলতে পারবেন না।

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone