শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
লালমনিরহাটে নদী-নালা, খাল-বিলে ধরা পড়ছে না দেশী প্রজাতির মাছ প্রশ্ন ফাঁস কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকায় লালমনিরহাটের আদিতমারীতে আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতিকে বহিষ্কার! লালমনিরহাটে অ্যাড. মোঃ মতিয়ার রহমান এমপির সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত লালমনিরহাট পৌরসভার ২০২৪-২০২৫ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ এর উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ ঐতিহ্য মৃৎ শিল্প লালমনিরহাটে বিজিবি মহাপরিচালক কর্তৃক বন্যাদূর্গতদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে বাঁশশিল্পীরা অন্য পেশায় ঝুঁকছেন লালমনিরহাটে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস-২০২৪ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে তিস্তা নদী নিয়ে সুচিন্তিত ভাবে কাজ করা হোক!
দ্বিতীয় বিবাহের কারন জানতে চাওয়ায় বাবা-মাকে পিটিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দিলেন ইউপি সদস্য ছেলে

দ্বিতীয় বিবাহের কারন জানতে চাওয়ায় বাবা-মাকে পিটিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দিলেন ইউপি সদস্য ছেলে

আলোর মনি রিপোর্ট: লালমনিরহাটে ছেলের দ্বিতীয় বিবাহের কারন ও জমা রাখা টাকা ফেরত চাওয়ায় বাবা-মাকে পিটিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে।

 

লালমনিরহাট জেলার আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মঞ্জুর আলমের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুলেছেন তাঁর পিতা মোঃ আব্দুল করিম। এ বিষয়ে পিতা আব্দুল করিম সোমবার (৭ মার্চ) ইউপি চেয়ারম্যান, আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, পুলিশ সুপার, জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।

 

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাপ্টিবাড়ী ইউনিয়নের বালাপুকুর এলাকার মৃত আব্দুল খালেকের পুত্র আব্দুল করিম বিয়ের পর থেকে পরিবারসহ শ্বশুরের বাড়ীতে বসবাস করছিলো। তার শ্বশুরের ছেলে সন্তান না থাকায় নাতী মঞ্জুর আলমকে বাড়ীর অংশ থেকে ৩০শতক সম্পত্তি দান করে। সেখানে সবাই একত্রে বসবাস করে আসছিলো। পরে ইউপি সদস্য মঞ্জুর আলম তার বিবাহিত প্রথম স্ত্রী রাবেয়া বেগমকে যৌতুকের কারণে বাড়ী থেকে বাহির করে দেয় এবং অবৈধ্যভাবে একটি মেয়ের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক করে বাড়ীতে নিয়ে আসেন। পরিকীয়া এবং পরে দ্বিতীয় বিবাহে পরিবারের সদস্যরা বাধা দেন এবং এর কারণ জানতে চাইলে মঞ্জুর আলম ক্ষিপ্ত হয়ে তার মা-বাবাকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে।

 

অভিযোগে উল্লেখ্য করে ইউপি সদস্যের পিতা আব্দুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, দ্বিতীয় বিবাহ ও প্রথম স্ত্রীকে বের করে দেওয়ার কারন জানতে চাইলেই নানা হুমকি দেয় ছেলে। তাছাড়া জমা রাখা টাকা চাইতে গিয়ে গালিগালাজ শুনতে হয়। এ নিয়ে এলাকার গন্যমান্যরা বৈঠক ডকলেও ছেলে মঞ্জুর আসেন না। বিষয়টি গণ্যমান্যদের জানানো ও বিচার চাওয়ায় গত ২৩ ডিসেম্বর পিতা-মাতাকে মারধোর একবস্ত্রে বাড়ী থেকে বের করে দেয় ইউপি সদস্য মঞ্জুর। পরে তারা প্রতিবেশী আঃ রাজ্জাকের পরিত্যাক্ত একটি ঘরে ঠাই নেন।এর ১৫-২০দিন পর পরিস্থিতি বিবেচনায় স্থানীয় লোকজন বাঁশ কালেকশন করে একটি ঘর নির্মাণ করে দেন। বর্তমানে তারা সেখানে বসবাস করছে।

 

এ বিষয়ে ইউপির সদস্য মঞ্জুর আলমের বাবা আব্দুল করিম ও মা মর্জিনা বেগম কান্না জড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের জানান, তারা এখন ভয়ে আছে। বাড়ী থেকে বিতারিত হয়ে ছেলে নিকট জমা রাখা টাকা চাইলে ছেলের দ্বিতীয় স্ত্রী বিভিন্ন হুমকি দেয়। তাছাড়া বাহিরের কারো নিকট এগুলো নিয়ে কথা বললে বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে বলে ছেলে তার বউ সবাইকে বলে বেড়ায়। তাই নিরুপায় হয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে বলে জানান তারা।

 

১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মঞ্জুর আলমের রিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ বিষয়ে তিনি ঘটনা সত্য নয় বলেন।

 

এ বিষয়ে আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার জি. আর সারোয়ার সাংবাদিকদের জানান, লিখিত কাগজটি এখনও হাতে পাই নি। কাগজ হাতে পেলেই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone