শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
লালমনিরহাটে হাতী-ঘোড়া সাজিয়ে ওয়ালটনের বর্ণাঢ্য র‌্যালি লালমনিরহাটে ১৫ মিটার দৈর্ঘ্যের ৩টি গার্ডার ব্রীজ নির্মাণ শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে সর্বজনীন পেনশন মেলা ২০২৪ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটের নিরীহ স্যানেটারী মিস্ত্রী মোঃ জিয়াউর রহমানকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ! অভ্যন্তরীণ বোরো ধান ও চাল সংগ্রহ ২০২৪ শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ টিআর প্রকল্পের নগদ টাকা বিতরণ অনুষ্ঠিত লালমনিরহাট রেলওয়ে বিভাগে দেশের প্রথম ইঞ্জিন ও কোচ ঘুরানো টার্ন টেবিল নির্মাণ লালমনিরহাটের ঐতিহ্যবাহী সুকান দীঘিতে পদ্মফুল ফুটেছে লালমনিরহাটের ৩টি উপজেলায় স্বতন্ত্র পদপ্রার্থীদের লড়াই! লালমনিরহাটে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পুতি রাণীর মৃত্যু
হাতে হাত কড়া, কোমরে দড়ি বেঁধে থানায় সোপর্দ বিজিবির সঙ্গে তর্কাতর্কি, এক বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার দেখিয়ে ‘সিনিয়র’ সাংবাদিক আটক, বেধরক মারধরে অভিযোগ

হাতে হাত কড়া, কোমরে দড়ি বেঁধে থানায় সোপর্দ বিজিবির সঙ্গে তর্কাতর্কি, এক বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার দেখিয়ে ‘সিনিয়র’ সাংবাদিক আটক, বেধরক মারধরে অভিযোগ

আলোর মনি ডটকম ডেস্ক রিপোর্ট: লালমনিরহাটের ‘সিনিয়র’ সাংবাদিক ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম শাহীনকে এক বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিলি (প্রায় দুইশ মিলিলিটার ওজন) উদ্ধার দেখিয়ে লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের কুলাঘাট ক্যাম্পের টহল দল তাকে আটক করেছে অভিযোগ উঠেছে।

 

জাহাঙ্গীর আলম শাহীন দৈনিক জনকন্ঠ ও বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত এবং লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা দ্বিমুখী স্কুল অ্যান্ড কলেজের সহকারী অধ্যাপক। তিনি লালমনিরহাট সদর উপজেলার মিশন মোড় ঈমানগঞ্জ এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে।

 

শুক্রবার সকালে লালমনিরহাট সদর থানার ওসি শাহা আলম সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম শাহীনকে বিজিবির নিকট থেকে থানায় সোপর্দ করা সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের রত্নাই বেইলী ব্রীজ এলাকায় সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম শাহীনের সঙ্গে বিজিবির টহল দলের সঙ্গে তর্কাতর্কির ঘটনায় এক বোতল ফেন্সিডিল গুজিয়ে দিয়ে তাকে আটক করা হয়েছে বলে শাহীনের বরাত দিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের দাবী।

লালমনিরহাট ১৫-বিজিবি ব্যাটালিয়নের কুলাঘাট ক্যাম্পের ইনচার্জ হাবিলদার আনোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা তাকে মারধর করিনি। তিনি হাত ঝটকা-ঝটকি করে পালানোর চেষ্টা করেন। এ সময় ধস্তাধস্তিতে হয়তো তাকে আঘাত লেগে থাকতে পারে।’

 

তিনি অপর এক প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা রত্নাই বেইলী ব্রীজে টহল করছিলাম। এ সময় জাহাঙ্গীর আলম মোটর সাইকেল যোগে লালমনিরহাট শহরের যাচ্ছিলেন। আমরা তাকে থামাই। এরপর তাকে সার্চ করে এক বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিল পাই। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে তাকে লালমনিরহাট সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে।’

 

এদিকে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ জুয়েল রানা শাহীনের শরীরে বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্নের কথা রয়েছে জানিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘বুরিশ ইন লেফট সাইড অফ ব্যাক অ্যাবাউট ৪ ইনটু ৩ সেন্টিমিটার, বুরিশ ইন রাইট থাই ইন ইটস লেটার‌্যাল এসপেক্ট অ্যাবাউট ৪ ইনটু ১ সেন্টিমিটার, লিনিয়ার এবারশন ইন লেফট সাইড অফ নোজ অ্যাবাউট হাফ সেন্টিমিটার লং, সোলিং লেফট আই।’

 

তিনি আরও সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিজিবির হাবিলদার আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে কয়েকজন মিলে সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম শাহীনকে শুক্রবার সকাল ৫টা ৩৫মিনিটে জরুরী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসেন এবং তাকে পরে তারা নিয়ে যান।’

 

লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পরিচালক লেঃ কর্ণেল এসএম তৌহিদুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা কাউকে তার পরিচয় দিয়ে বিবেচনা করি না। মাদকের ক্ষেত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতি আমরা অনুসরণ করে থাকি। যেহেতু মাদকসহ তাকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দেওয়া হয়েছে। এর আগে তিনি কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার গঙারহাট বিজিবি ক্যাম্প ও কুলাঘাট বিজিবি ক্যাম্পের সম্মূখে সমস্যায় পড়েছিলেন। এছাড়া মোগলহাট বিজিবি ক্যাম্পে আটকের পর প্রেসক্লাব সভাপতি তাকে মুচলেকায় নিয়ে আসেন।’

 

তিনি আরও সাংবাদিকদের বলেন, ‘তিনি বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে রত্নাই বেইলী সেতুর নিকটে বিজিবির টহল দলকে কোনভাবেই সহযোগিতা করেননি। বরং যখন তার মোটর সাইকেলটি সার্চ করতে চায় তখনই তিনি উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। মাদকসহ যেই ধরা পড়ুক না কেন, তিনি তখন নিজেকে নির্দোষ দাবী করে। এ ক্ষেত্রে জাহাঙ্গীর আলমও একই দাবী করে থাকতে পারে।’

 

শুক্রবার সকালে সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম শাহীনের স্ত্রী রেবেকা সুলতানা অভিযোগ করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার স্বামী জাহাঙ্গীর আলম শাহীন সাংবাদিকতার কাজে গিয়েছিলেন বলে জানি। শাহীনের সঙ্গে যিনি ছিল তাকে আটক করা হয়নি। অথচ আমার স্বামীকে আটক করা হলো কেন? তাকে কেন মারধর করা হয়েছে? তিনি একজন সিনিয়র সাংবাদিক ও কলেজ শিক্ষক। অথচ তাকে এক বোতল ফেন্সিডিল দিয়ে আটক করে কোমড়ে দড়ি বেঁধে এবং হাতে হাত কড়া পড়িয়ে থানায় আনা হয়েছে। তার সঙ্গে জঘন্য অপরাধীদের মতোই আচরণ করা হয়েছে। আমি এর সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায় বিচার চাই।’

 

লালমনিরহাট সদর থানার ওসি শাহা আলম বিজিবির পক্ষ থেকে মাদক মামলার অভিযোগ দেওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিষয়টি পরীক্ষা-নীরিক্ষা করা হচ্ছে। সিনিয়র অফিসারের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone