শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
লালমনিরহাটে হাতী-ঘোড়া সাজিয়ে ওয়ালটনের বর্ণাঢ্য র‌্যালি লালমনিরহাটে ১৫ মিটার দৈর্ঘ্যের ৩টি গার্ডার ব্রীজ নির্মাণ শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে সর্বজনীন পেনশন মেলা ২০২৪ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটের নিরীহ স্যানেটারী মিস্ত্রী মোঃ জিয়াউর রহমানকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ! অভ্যন্তরীণ বোরো ধান ও চাল সংগ্রহ ২০২৪ শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ টিআর প্রকল্পের নগদ টাকা বিতরণ অনুষ্ঠিত লালমনিরহাট রেলওয়ে বিভাগে দেশের প্রথম ইঞ্জিন ও কোচ ঘুরানো টার্ন টেবিল নির্মাণ লালমনিরহাটের ঐতিহ্যবাহী সুকান দীঘিতে পদ্মফুল ফুটেছে লালমনিরহাটের ৩টি উপজেলায় স্বতন্ত্র পদপ্রার্থীদের লড়াই! লালমনিরহাটে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পুতি রাণীর মৃত্যু
লালমনিরহাটে কৃষকেরা টমেটো চাষ করে লাভবান হচ্ছেন

লালমনিরহাটে কৃষকেরা টমেটো চাষ করে লাভবান হচ্ছেন

আলোর মনি ডটকম ডেস্ক রিপোর্ট: লালমনিরহাট জেলা কৃষি প্রধান জেলা হিসেবে পরিচিত। এ জেলায় সব ধরনের কৃষি পণ্য উৎপাদন হয়ে থাকে। বিশেষ করে নদী তীরবর্তী চরাঞ্চলে কৃষি পণ্যের আবাদ বেশি ও সব ধরনের আবাদী ফসলের ফলন বেশি হয়। বিশেষ করে চরাঞ্চলে প্রতি বছর বন্যার পানি উঠে জমিতে পলি পড়ে। আর সেই পলি জমিতে কৃষি পণ্যের যে কোন ধরনের ফসল হয় অত্যন্ত ভালো।

এসব জমিতে কৃষকদের ফসল চাষে সার ও বিভিন্ন ধরনের কীটনাশকের ব্যবহারও করতে হয় কম। তাই তাদের ফসল চাষে খরচও কমে আসে। তেমনি ফসল আবাদের স্থান লালমনিরহাট জেলার ৫টি (লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা, পাটগ্রাম) উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের পলি পরা চরাঞ্চলের জমিগুলো।

 

তিস্তা, ধরলা, রত্নাই নদীর চরাঞ্চল এলাকায় এর চাষ বেশি হয়। এখানে প্রতি বছর চাষিরা টমেটো চাষ করে থাকে। এ বছরও এ স্থানে টমেটোর আবাদ হয়েছে ব্যাপক ভাবে। এখানকার কৃষকরা প্রতি বছর টমেটো আবাদ করে লাভবান হচ্ছেন। এ বছর বাজার দর ভালো ও ফলন বেশি হওয়ায় তারা তাদের ফসলি জমি থেকে ফসল বিক্রি করে লাভবান হচ্ছেন বলে জানান।

 

লালমনিরহাটে সবজি চাষ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এর মধ্যে টমেটো চাষের জন্য ব্যাপক ভাবে সাড়া জাগিয়েছে। টমেটো চাষ লাভজনক ফসল হিসেবে কৃষকদের কাছে বেশ গুরুত্ব পেয়েছে। বিশেষ করে নদীর তীরবর্তী এলাকায় এর চাষ বেশি হচ্ছে। লালমনিরহাট জেলার ৫টি উপজেলার মধ্যে লালমনিরহাট সদর ও আদিতমারী উপজেলা টমেটোর চাষ বেশি হয়েছে। তবে যেসব কৃষকেরা আগাম টমেটো চাষ করেছেন তারা বেশি লাভবান হচ্ছেন। বাজার দর ভালো ও ফলন বেশি হওয়ায় এ বছর তারা টমেটো চাষ করে বেশি লাভ পাচ্ছেন।

 

কৃষকরা বলেন, নদীর পাড়ে তাদের জমিগুলো হওয়ায় প্রতি বছর তাদের এই জমিগুলো নদীর পানিতে তলিয়ে যায়। আর জমিগুলোতে নদীর পলি পড়ে সবজি ও অন্যান্য ফসলের ফলন ও আবাদ ভালো হয়। এ বছর কৃষকদের প্রতি বিঘা জমিতে টমেটো চাষ করে খরচ হয়েছে প্রায় ১৫ হতে ২০হাজার টাকা। তবে যে পরিমাণে টমেটোর ফলন হয়েছে তাতে বিঘা প্রতি ১শত মণ থেকে ১শত ৫০মণ টমেটো পাওয়া যাবে। প্রতি মণ টমেটো বর্তমান বাজার মূল্য ৯শত টাকা থেকে ১হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে পাইকারীভাবে। প্রতি কেজি টমেটোর এখন বাজার দর ২২টাকা থেকে ২৫টাকা করে পাচ্ছেন। সেই হিসেবে টমেটো চাষিরা এ বছর টমোটো চাষ করে বেশি ভালো লাভবান হয়েছেন বলে জানান।

 

এ বছর লালমনিরহাটে ৫শত ৫৫হেক্টরের বেশি জমিতে টমেটো চাষ হয়েছে। কৃষকেরা হাইব্রিড জাতের টমেটো বেশি চাষ করে থাকেন।

 

তবে আগাম টমেটো চাষিরা টমেটো বিক্রি করে বেশি লাভবান হয়ে থাকেন। চরাঞ্চলের চাষিরা জমি থেকে পানি নামার সাথে সাথে টমেটো চাষ করে থাকে ও কৃষি সম্প্রসারণ কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে আধুনিক পদ্ধতিতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হয়। যাতে তারা কঞ্চি পদ্ধতিতে রোপনের মাধ্যমে চাষ করলে বেশি লাভবান হতে পারে। বিঘা প্রতি টমেটো চাষিরা যেন লাখ টাকা পর্যন্ত টমেটো বিক্রি করতে পারেন এভাবে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone