শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
লালমনিরহাটে বিএসটিআই এর মোবাইল কোর্টের অভিযানে ৩৫হাজার টাকা জরিমানা লালমনিরহাটে যত্রতত্র এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার বিক্রি; দুর্ঘটনার আশঙ্কা লালমনিরহাটে জাতীয় সাংবাদিক ঐক্য ফোরামের উপদেষ্টা অধ্যক্ষ আবু বক্কর সিদ্দিক শ্যামলকে ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপন অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটের চরনামা খুনিয়াগাছে কুচক্রী ব্যক্তিরা আবারও মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে! স্থবির লালমনিরহাটের সাংস্কৃতিক অঙ্গন লালমনিরহাটে ২০২৩-২০২৪ ইং অর্থ বছরে ইউনিয়ন উন্নয়ন সহায়তা খাতের আওতায় সরবরাহকৃত মালামাল বিতরণ অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে সংখ্যালঘুদের নির্যাতন-নিপীড়ন অনতিবিলম্বে বন্ধের দাবিতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে নদী-নালা, খাল-বিলে ধরা পড়ছে না দেশী প্রজাতির মাছ প্রশ্ন ফাঁস কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকায় লালমনিরহাটের আদিতমারীতে আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতিকে বহিষ্কার! লালমনিরহাটে অ্যাড. মোঃ মতিয়ার রহমান এমপির সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত
লালমনিরহাটে জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয়ে সাজানো মামলার অভিযোগ!

লালমনিরহাটে জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয়ে সাজানো মামলার অভিযোগ!

লালমনিরহাটের গোকুন্ডা ইউনিয়নের গুড়িয়াদহ (মোকন্দ দীঘিরপাড়) এলাকার জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয়ের জের ধরে একটি ষড়যন্ত্রমূলক হেও প্রতিপন্য করার উদ্দেশ্যে মিথ্যা (সাজানো) মামলার অভিযোগ উঠেছে একই এলাকার কতিপয় ব্যক্তিগণ এর বিরুদ্ধে।

 

রোববার (৭ জুলাই) লালমনিরহাট পুলিশ সুপার বরাবরে লালমনিরহাটের গোকুন্ডা ইউনিয়নের গুড়িয়াদহ (মোকন্দ দীঘিরপাড়) এলাকার মোঃ আব্দুল হকের পুত্র মোঃ এমদাদুল হক (৩৫) এ অভিযোগ দাখিল করেছেন।

 

মোঃ এমদাদুল হক স্বাক্ষরিত অভিযোগে উল্লেখ করেন যে, জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয়ের জের ধরে বাদী লালমনিরহাটের গুড়িয়াদহ এলাকার মোঃ নুর ইসলাম স্ত্রী মোছাঃ মুক্তা বেগম (৩৪)। চলতি বছরের গত ২৫ জুন বিজ্ঞ আমলী আদালত-১ লালমনিরহাট। একটি ষড়যন্ত্রমূলক হেও প্রতিপন্য করার উদ্দেশ্যে মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং-সিআর ৪৯৭/২৪ (লাল)। যাহাতে আইনজীবির মনগড়া আর্জি প্রতীয়মান হয় যে, জমি নিয়ে বিরোধ চলছে তাহা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আমাদের দায়ের করা মামলা বিজ্ঞ আদালত ঐ জমির উপর ১৪৪ ধারা জারী করেন (যাহার মামলা নং-পিটিশন ১০৮/(২৩)। সেই পুকুরের জমিতে বাদী পক্ষ বেআইনীভাবে প্রবেশ করে গন্ডগোল ও দাঙ্গা হাঙ্গামা সৃষ্টি করে। অপর দিকে যেখানে বাদীর হাসপাতাল ভর্তি রেজিষ্টারে বাদীর ঘাড়ে সামান্য ছিলা-যখম লেখা আছে। তাহাও বাদী পক্ষের পরিকল্পিতভাবে সাজানো এবং সেখানে আইনজীবি মনগড়া এসিড নিক্ষেপ করার কথা উল্লেখ করে কিভাবে, বাদীর করার মামলার কোন স্বাক্ষী প্রমান ও আলামত না থাকায় সংশ্লিষ্ট থানায় মিথ্যা অভিযোগ গ্রহণ করেননি। পরে আইনজীবীর মনগড়া আর্জির উপর ভিত্তি করে বিজ্ঞ আদালত লালমনিরহাট সদর থানায় প্রেরণ করেন।

 

মোঃ এমদাদুল হক বলেন, আমার অভিযোগের উপরোক্ত বিষয়ের আলোকে দয়া পরবশ হয়ে সরেজমিনে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone