শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
লালমনিরহাটে কয়েকদিনের বৃষ্টিপাতে কপাল পুড়ছে মরিচ চাষির! খবর প্রকাশের পর জনস্বার্থে কেটে ফেলা হলো লালমনিরহাটের সেই প্রাচীন বটগাছটির ঝুঁকিপূর্ণ ডাল! লালমনিরহাটের তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ২৫সেন্টিমিটার উপরে! লালমনিরহাটের তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ১৩সেন্টিমিটার উপরে! লালমনিরহাটে বিদ্যুতের সঙ্গে বন্ধ হয় মোবাইল নেটওয়ার্কও; হতাশায় এলাকাবাসী! লালমনিরহাটে খেলাধুলার মাঠে মাটির স্তূপ! লালমনিরহাটে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উদযাপিত দেশবাসীকে সাপ্তাহিক আলোর মনি’র ঈদ-উল-আযহার শুভেচ্ছা লালমনিরহাটে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা-২০২৪ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে জাতীয় মহাসড়কের ডিভাইডারে ঝুঁকিপূর্ণ বিলবোর্ড স্থাপন!
উচ্চ আদালতেও বৈধতা পেলেন সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেন

উচ্চ আদালতেও বৈধতা পেলেন সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেন

আলোর মনি ডটকম ডেস্ক রিপোর্ট: লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির নব-নির্বাচিত সভাপতি সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেনের বৈধতা নিয়ে করা প্রধান শিক্ষকের রিট খারিজ করে দিয়েছে হাইকোর্ট। আজ বুধবার ১৫ জুলাই সকালে হাইকোর্টের বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিমের আদালত এ আদেশ দেন। ফলে ওই কমিটির সভাপতি সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেন আদালত থেকেও বৈধতা পেলেন।

সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেনের আইনজীবি এ্যাডঃ শরিফ ইউ আহেম্মদ জানান, হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম জি মোস্তফা ওই বিদ্যালয়ের নব-নির্বাচিত পরিচালনা কমিটির সভাপতি সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেনের নির্বাচনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে একটি রিট করেন (পিটিশন নং ৪৯৩/২০২০)। সোমবার সকালে হাইকোর্টের বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিমের আদালতে ওই রিটের শুনানি হয়। শুনানি শেষে প্রধান শিক্ষকের করা রিট খারিজ করে দেয় আদালত। এর আগে নব-নির্বাচিত সভাপতি সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেনও তার দায়িত্ব পেতে একই আদালতের দারস্থ হন (পিটিশন নং ৩৬৪/২০২০)। গত ৭ জুলাই ওই রিটের শুনানি শেষে ১ মাসের মধ্যে নব-নির্বাচিত সভাপতি সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেনকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে সংশ্লিষ্ট কৃর্তপক্ষকে নিদের্শ দেন একই আদালতের বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম। ফলে ওই বিদ্যালয়ের সভাপতি পদে দায়িত্ব পালনে আর কোনো বাধা রইল না এমন দাবী সাংবাদিক কাজী আলতাব হোসেনের।

 

এ বিষয়ে হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম জি মোস্তফার সাথে ফোনে কথা হলে তিনি প্রথমত হাইকোর্টে রিটের বিষয়টি অস্বীকার করেন। পরে রিটের নম্বর (৪৯৩/২০২০) উল্লেখ করলে তখন তিনি বলেন, ওই রিটের এখনো শুনানি হয়নি বলেই ফোন কেটে দেন। এরপর যোগাযোগ করা হলে তার আর কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone