শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
লালমনিরহাটের তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ১৩সেন্টিমিটার উপরে! লালমনিরহাটে বিদ্যুতের সঙ্গে বন্ধ হয় মোবাইল নেটওয়ার্কও; হতাশায় এলাকাবাসী! লালমনিরহাটে খেলাধুলার মাঠে মাটির স্তূপ! লালমনিরহাটে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উদযাপিত দেশবাসীকে সাপ্তাহিক আলোর মনি’র ঈদ-উল-আযহার শুভেচ্ছা লালমনিরহাটে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা-২০২৪ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে জাতীয় মহাসড়কের ডিভাইডারে ঝুঁকিপূর্ণ বিলবোর্ড স্থাপন! লালমনিরহাটের সাংবাদিক মোঃ মিজানুর রহমান-এঁর শুভ জন্মদিন পালিত লালমনিরহাটের হযরত শাহ্ কবির (রহঃ) বড়দরগাহ মাজার শরীফ লালমনিরহাটে ছাত্রলীগের সভাপতি ও তার সহযোগীদের গ্রেফতারের দাবীতে- মানববন্ধন অনুষ্ঠিত
মালিকানা জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণের অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন

মালিকানা জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণের অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন

আলোর মনি রিপোর্ট: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় ব্যক্তি মালিকানা জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ হবে এমন অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করেছে এক পরিবার। তবে ইউএনও’র দাবী ব্যক্তি মালিকানা নয়, সরকারী জমিতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ হচ্ছে। উপজেলার সানিয়াজান ইউনিয়নের আরাজি শেখ সুন্দর এলাকার আবুল কালাম আজাদ তালুকদারের ছেলে নাজমুল ইসলাম তালুকদার নিজ বাড়িতে বুধবার বিকালে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন, এ এলাকার ১৮১ এসএ খতিয়ানের জমিতে ৮একর ৪৭শতক জমি পৈতিক সূত্রে আমার পরিবার ভোগ দখল করে আসছে। কিন্তু এসএ খতিয়ানে কিছু জমি ভুলবশত অন্য এক ব্যক্তি ও সরকারের নামে রেকর্ড ভুক্ত হয়। বিআরএস খতিয়ানেও ওই জমি খাস খতিয়ান ভুক্ত হয়। এ নিয়ে আমরা আদালতের আশ্রয় গ্রহণ করি। আমাদের পক্ষে একটি রায় হয়েছে। অপর একটি মামলা উচ্চ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। কিন্তু গত ১৩ এপ্রিল মঙ্গলবার হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমিন ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) শামীমা সুলতানা উক্ত জমিতে উপস্থিত হয়ে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের বসত বাড়ি নির্মাণের কথা বলেন। আমরা জমির স্বপক্ষে কাগজপত্র দেখাতে চাইলে তিনি তা না দেখিয়া ফসলী জমি মেরে ফেলার নির্দেশ প্রদান করেন। যেহেতু আদালতে মামলা রয়েছে তাই উক্ত জমিতে সরকারী আশ্রয়ণ প্রকল্পের বসত বাড়ী নির্মাণের কোনো সুযোগ নেই।

 

তবে হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমিন সাংবাদিকদের বলেন, এসএ’র পাশাপাশি বিআরএস খতিয়ানেও ওই জমি খাসভুক্ত হয়েছে। এ ছাড়া উক্ত জমির মালিকানা দাবী করে কেউ সরকারের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করে

নাই। তাই সরকারী জমিতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভূমিহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের বসত বাড়ি নির্মাণ হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone