শিরোনাম :
সাপ্তাহিক আলোর মনি পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাকে স্বাগতম। # সারাবিশ্বের সর্বশেষ সংবাদ পড়তে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। -ধন্যবাদ।
বন্যায় বিপর্যস্ত লালমনিরহাট জনপদঃ ত্রাণ-পুনর্বাসন অপর্যাপ্ত

বন্যায় বিপর্যস্ত লালমনিরহাট জনপদঃ ত্রাণ-পুনর্বাসন অপর্যাপ্ত

Exif_JPEG_420

ভয়ঙ্কর রূপে তিস্তা, ধরলা, রত্নাই ও সানিয়াজান

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ: বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার (১৩ থেকে ১৪ জুলাই) ২দিনের লাগাতার বৃষ্টিপাত ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে লালমনিরহাট জেলা দিয়ে বয়ে যাওয়া তিস্তা, ধরলা, রত্নাই ও সানিয়াজানসহ প্রায় সকল নদ-নদীর পানি হু-হু করে বৃদ্ধি পেয়ে নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করেছে।

 

লালমনিরহাট জেলার ৫টি (লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা, পাটগ্রাম) উপজেলার ৪৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩৫টি ইউনিয়নই বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। লালমনিরহাট জেলার চারদিকে শুধু পানি আর পানি। লালমনিরহাটে বিপদ সীমার ৩২সেন্টিমিটার উপরে তিস্তা, ২২সেন্টিমিটার উপরে ধরলার পানি। বন্যা পরিস্থিতির ভয়াবহ অবনতি হওয়ায় রোপা আমন ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেসে যাচ্ছে পুকুরের মাছ। সবজি ক্ষেত তলিয়ে গেছে।

 

জানা যায়, লালমনিরহাট জেলার ৫টি (লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা, পাটগ্রাম) উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে অমানবিক জীবন যাপন করছেন। এসব মানুষের মাঝে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। বন্যার কারণে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার অবনতি হয়েছে। অনেক জায়গায় সড়ক পথ ভেঙ্গে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে বানভাসি মানুষগুলো নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিচ্ছে।

 

মোগলহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, ধরলা ও রত্নাই নদীর পানি বেড়ে এ ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে পানি প্রবেশ করেছে।

 

কুলাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইদ্রিস আলী বলেন, ধরলা ও রত্নাই নদীর পানি প্রবল বেগে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে এ ইউনিয়নের বন্যার অবস্থার অবনতি হচ্ছে।

 

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ উল্যাহ বলেন, আমরা সার্বক্ষণিক বন্যার খোঁজ রাখছি। জেলায় দুর্যোগকালীন ৪শত ৫০মেট্টিক টন চাল ও ৭লাখ টাকা বরাদ্দ আছে। ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট ইউএনও এবং পিআইওর মাধ্যমে ১শত ১০মেট্টিক টন চাল দেওয়া হয়েছে। আবারও তালিকা করে বরাদ্দ দেওয়া হবে।

 

এদিকে লালমনিরহাটে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ৩২সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ পানি বৃদ্ধির কারণে বর্তমানে লালমনিরহাট জেলার তিস্তা নদীর তীরবর্তী এলাকায় বন্যার সৃষ্টি হয়েছে।

 

শুক্রবার (১৪ জুলাই) সকাল ৯টা থেকে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার তিস্তা ব্যারাজ ডালিয়া পয়েন্টে পানির প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২দশমিক ৪৭মিটার। যা (বিপদসীমা ৫২দশমিক ১৫সেন্টিমিটার) যা বিপদসীমার ৩২সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

 

শুক্রবার (১৪ জুলাই) ভোর থেকে পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার উপরে থাকলেও সকাল ৯টার পর থেকেই আবারও বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে তিস্তা নদীর তীরবর্তী এলাকার মানুষ এবার আরও একটি বন্যার কবলে পড়েছেন।

 

পানির প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় তিস্তা নদীর তীরবর্তী ৫টি (লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা, পাটগ্রাম) উপজেলার পরিবারগুলো পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। ইতিপূর্বেই কয়েক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

 

বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্রের দাবি, তিস্তায় এটি বড় ধরনের বন্যা। তবে বৃষ্টির কারণে উজানের ঢেউয়ের ফলে পানির প্রবাহ বেড়েছে। ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানির প্রবাহ বেড়েছে বলে দাবি করেছে ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আসফাউদ্দৌলা।

 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শুনীল কুমার বলেন, তিস্তার পানির প্রবাহ বেড়েছে। বর্তমানে তিস্তা ব্যারাজের সবগুলো জলকপাট খোলা রয়েছে। তবে ভারতে পানির প্রবাহ কমে গেলে তিস্তার পানি আরও কমবে বলে জানান তিনি।

 

এদিকে ধরলা নদীর শিমুলবাড়ি পয়েন্টে পানি সমতল ৩১.৩১মিটার (বিপদসীমা ৩১.০৯মিটার) যা বিপদসীমার ২২সেন্টিমিটার উপরে।

 

এছাড়াও রত্নাই, স্বর্ণামতি, সানিয়াজান, সাকোয়া, চাতলা, মালদহ, ত্রিমোহীনি, মরাসতি, গিরিধারী, গিদারী, ধোলাই, শিংগীমারী, ছিনাকাটা, ধলাই ও ভেটেশ্বর নদীতে বন্যার পানিও বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে।

 

প্রসঙ্গত, লালমনিরহাটে বৃষ্টিপাত ২১মিলিমিটার।

সংবাদটি শেয়ার করুন




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design & Developed by Freelancer Zone